Breaking News
এডুকেশন লোন, শিক্ষা ঋণ

এডুকেশন লোন কি ও কিভাবে পাওয়া যায় । শিক্ষা ঋণ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য

এডুকেশন লোন কি?

উচ্চমাধ্যমিকের পর দেশে বা বিদেশে উচ্চশিক্ষা সংক্রান্ত খরচের জন্য যে অর্থ ঋণ হিসেবে নেওয়া হয় সেটাই এডুকেশন লোন, এর মধ্যে কোর্স ফ্রী, বিমান ভাড়া, বাসস্থান, জীবনযাত্রা, অন্যান্য খরচ অন্তর্ভুক্ত থাকে।

এডুকেশন লোন কি

এডুকেশন লোন গুলি কি ধরনের হয়ে থাকে?

অবস্থানের ওপর ভিত্তি করে এডুকেশন লোন বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে যেমন- ডিপ্লোমা এবং সার্টিফিকেট কোর্সের জন্য লোন । দক্ষতাভিত্তিক কোর্সের জন্য বিদেশে অধ্যায়নের জন্য লোন।
তবে কোর্স যাই হোক না কেন মূলত এডুকেশন লোন এর দুটি ভাগে বিভক্ত:
প্রথমটি হলো ডোমেস্টিক এডুকেশন লোন বা স্বদেশ শিক্ষাঋণ
যে সকল ছাত্রীরা ভারতের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষা গ্রহণ করতে চায় তারা এই ধরনের ঋণের জন্য আবেদন করতে পারে আবেদনকারী ভারতীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হলে এবং ঋণদাতার সমস্ত শর্ত পূরণ করলে এই ধরনের ঋণ পাওয়া যেতে পারে।

দ্বিতীয়টি হলো ওভারসিস এডুকেশন লোন বা বৈদেশিক শিক্ষাঋণ
দেশের ভৌগোলিক সীমার বাইরে বিদেশের কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষামূলক কোর্সের জন্য ঋণ ।

এছাড়া কোর্স এর উপর ভিত্তি করে রয়েছে স্নাতক, স্নাতকোত্তর, ক্যারিয়ার উন্নয়ন ঋণ ।

এডুকেশন লোন বা শিক্ষা ঋণের আওতায় ব্যয় এর তালিকা গুলি কি কি?

  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোর্স ফ্রী।
  • পরীক্ষা,লাইবেরি, ল্যাবরটরি ফ্রী বিদেশে পড়াশোনার জন্য বিমান ভাড়া।
  • ঋণগ্রহীতা ছাত্রের যদি বীমার প্রয়োজন হয় তবে তার প্রিমিয়াম।
  • বাসস্থান ফ্রী।
  • বই ,সরঞ্জাম, যন্ত্রপাতি, ইউনিফর্ম ক্রয়।
  • কোর্সটি কমপ্লিট করার জন্য যদি কোন ল্যাপটপ বা কম্পিউটার এর প্রয়োজন হয়।
  • কোর্সের প্রয়োজনীয় অন্যান্য খরচ যেমন স্টাডি টুর/প্রকল্পের কাজ/থিসিস ও আরো অন্যান্য

এডুকেশন লোন বা শিক্ষা ঋণ পাওয়ার জন্য কি কি যোগ্যতা থাকা প্রয়োজন?

  • ভারতীয় নাগরিক হতে হবে।
  • ভর্তি হওয়া উচিত ভারতের যেকোনো অনুমোদিত বিশ্ববিদ্যালয়, ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে।
  • স্নাতক কোর্সের জন্য ১০+২ এবং স্নাতকোত্তর কোর্স এর জন্য ডিগ্রি সম্পন্ন করা উচিত।
  • বয়স ১৬ থেকে ৩৫ বছর মধ্যে হতে হবে।

কোন কোন ব্যাংক এডুকেশন ঋণ দিয়ে থাকে ও কত টাকা পর্যন্ত এই ঋণ দিয়ে থাকে?

সরকারি এবং বেসরকারি দু’ধরনের ব্যাংক এডুকেশন লোন দিয়ে থাকে। এডুকেশন পরিমাণ প্রতিটি ব্যাংকের ক্ষেত্রে আলাদা। বিদেশে পড়াশোনার ক্ষেত্রে ১ কোটি পর্যন্ত এবং স্বদেশে পড়াশোনার ক্ষেত্রে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত এই ঋণ দেওয়া হয়ে থাকে।
তবে শিক্ষা ঋণ -এর সব থেকে বড় সুবিধা হল উচ্চশিক্ষার নির্দিষ্ট কোর্স শেষ হওয়ার পর থেকে ঋণের ইএমআই দেওয়া শুরু হয় যার মধ্যে সুদ ও আসল উভয় ধরা থাকে। কতদিন পর থেকে ইএমআই দেওয়া শুরু করতে হবে অথবা কতদিন ধরে এই ঋণ পরিশোধের ইএমআই দিতে হবে সেটা সময়সীমা ব্যাংক ঠিক করে দেয়।

ব্যাঙ্ক অফ বরোদা ৮০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত এডুকেশন লোন দিয়ে থাকে এবং তাদের পরিশোধের সময়সীমা ১০ থেকে ১৫ বছর।
ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া ২০ থেকে ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত এডুকেশন লোন দিয়ে থাকে এবং ৪ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণের ক্ষেত্রে কোন সিকিউরিটি প্রয়োজন পড়ে না। পরিশোধের সময়সীমা ১৫ বছর পর্যন্ত।
সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত স্টুডেন্ট লোন দিয়ে থাকে এবং ৪ লক্ষ টাকা পর্যন্ত কোন সিকিউরিটি প্রয়োজন নেই। ৭.৫ লাখ পর্যন্ত লোনের ক্ষেত্রে পরিশোধের সময়সীমা ১০ বছর এবং ৭.৫ লাখ টাকার উপরে ঋণের ক্ষেত্রে পরিশোধের সময়সীমা ১৫ বছর।
ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া স্বদেশে পড়ার ক্ষেত্রে এরা সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা স্টুডেন্ট লোন দিয়ে থাকে এবং বিদেশে পড়ার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ২০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত এই লোন দিয়ে থাকে। কোর্স শেষ হওয়ার এক বছর পর থেকে লোন পরিশোধ করা শুরু করতে হবে যেটি সর্বোচ্চ ১৫ বছর পর্যন্ত চলতে পারে।
স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া ৭.৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোনের ক্ষেত্রে পিতা-মাতা বা গার্জিয়ান সহ-ঋণগ্রহীতা হিসেবে থাকবে এছাড়া আর কোন সিকিউরিটির প্রয়োজন নেই। ঋণ পরিশোধের সময়সীমা ১৫ বছর। স্টেট ব্যাঙ্ক এডুকেশন লোন অনলাইন অ্যপ্লাই
পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক সাড়ে সাত লক্ষ টাকা পর্যন্ত শিক্ষা ঋণের ক্ষেত্রে কোনো সিকিউরিটির প্রয়োজন নেই। পিতা-মাতা যৌথ ঋণগ্রহীতা হিসেবে থাকবে। কোর্স পিরিয়ড প্লাস এক বছর পর থেকে ঋণ পরিশোধের সময়সীমা সর্বোচ্চ ১৫ বছর।
আইডিবিআই ব্যাঙ্ক ভারতের মধ্যে পড়াশোনা ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ২০ লক্ষ টাকা এবং ভারতের ভৌগোলিক সীমার বাইরে গিয়ে পড়াশোনা ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৩০ লক্ষ টাকা এডুকেশন লোন দিয়ে থাকে। চার লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ এর ক্ষেত্রে কোন সিকিউরিটির প্রয়োজন নেই, পিতা মাতা সহ-ঋণগ্রহীতা হিসেবে থাকবে।
কানাডা ব্যাঙ্ক সর্বোচ্চ ৭.৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ভোকেশনাল/সার্টিফিকেট/ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্ন করার জন্য শিক্ষা ঋণ দিয়ে থাকে । চার লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণের ক্ষেত্রে কোন সিকিউরিটির প্রয়োজন নেই, পিতা মাতা সহ-ঋণগ্রহীতা হিসেবে থাকবে।
অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৪০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত দেশের মধ্যে পড়াশোনা ক্ষেত্রে এডুকেশন লোন দিয়ে থাকে। অ্যাক্সিস ব্যাংকের এডুকেশন লোন পাওয়ার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারেন। অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক এডুকেশন লোন অনলাইন এপ্লাই
আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক দেশের মধ্যে পড়াশোনার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৫০ লক্ষ টাকা ও বিদেশে গিয়ে পড়াশোনার ক্ষেত্রে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত শিক্ষা ঋণ দিয়ে থাকে। আইসিআইসিআই ব্যাংকের এডুকেশন লোন এর জন্য অনলাইন এপ্লাই করতে পারেন। আইসিআইসিআই এডুকেশন লোন অনলাইন

ব্যাংক গুলি সাধারণত পড়াশোনার খরচ ৯০ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ হিসাবে দিয়ে থাকে। শিক্ষার্থিনীদের সুদের হারের উপর ছাড় রয়েছে।

কোন ব্যাংক এডুকেশন লোন এর উপর কত হারে সুদের হার নিয়ে থাকে

ব্যাংকের নামশতকরা বার্ষিক সুদের হার
ব্যাঙ্ক অফ বরোদা৬.৭৫
ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া৬.৮০
সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া৬.৮৫
ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া৭.৫

স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া৬.৮৫
পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক৬.৯০
আইডিবিআই ব্যাঙ্ক৬.৯০
কানাডা ব্যাঙ্ক৬.৯০
এক্সেস ব্যাঙ্ক৯.৭০
আইসিআইসিআই১০.৫০

এডুকেশন লোন পাওয়ার জন্য কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন?

  • কেওয়াইসি ডকুমেন্টস
  • মার্কশিট টেন, টুয়েলভ, গ্রাজুয়েশন, এন্ড এন্ট্রান্স এক্সাম
  • অ্যাডমিশন লেটার
  • বয়সের প্রমানপত্র (বার্থ সার্টিফিকেট/পাসপোর্ট/প্যান কার্ড/ড্রাইভিং লাইসেন্স)
  • এড্রেস প্রুফ (আধার কার্ড/পাসপোর্ট/লেটেস্ট ইলেকট্রিসিটি বিল/লেটেস্ট টেলিফোন বিল/ব্যাংক অ্যাকাউন্ট স্টেটমেন্ট)
  • ফটো আইডেনটিফিকেশন প্রুফ (আধার কার্ড/ভোটার আইডি/পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স)
  • পাসপোর্ট সাইজ ফটো আবেদনকারী এবং সহ-আবেদনকারীর
  • কোর্স ফ্রি এর পূর্ণাঙ্গ বিবরণ
  • সহ-আবেদনকারীর কেওয়াইসি এন্ড ইনকাম প্রুফ

কিভাবে শিক্ষা ঋণ পাওয়ার জন্য আবেদন করবেন?

শিক্ষা ঋণ পাওয়ার জন্য আপনি আপনার পছন্দের ব্যাংকে যেতে পারেন এবং সেখানে তাদের ঋণ প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে পারেন এছাড়া আপনি অনলাইনে আবেদন করতে পারেন এরপর ঋণের আবেদন প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস এর সাথে জমা করতে হবে। এরপর ব্যাংক সেগুলো যাচাই করে আপনি যে ধরনের অধ্যায়নের জন্য ঋণ পেতে চান তার মূল্যায়ন করে ঋণ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করবে।

*এছাড়া অন্যান্য ব্যাংক লোনগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

এডুকেশন লোন বা শিক্ষা ঋণ কি?

উচ্চমাধ্যমিকের পর দেশে বা বিদেশে উচ্চশিক্ষা সংক্রান্ত খরচের জন্য যে অর্থ ঋণ হিসেবে নেওয়া হয় সেটাই এডুকেশন লোন

এডুকেশন লোন কত ধরনের হয়?

মুলত দুই ধরনের: প্রথমটি হলো ডোমেস্টিক এডুকেশন লোন বা স্বদেশ শিক্ষাঋণ। আর দ্বিতীয়টি ওভারসিস এডুকেশন লোন বা বৈদেশিক শিক্ষাঋণ

Share This:
Advertisement

Check Also

SBI Home Loan Details

SBI Home Loan best offer 75 Lakhs । এস বি আই হোম লোন কিভাবে পাওয়া যায় ?

SBI Home Loan best offer: বন্ধুরা আমাদের প্রত্যেকের বিশেষ কিছু স্বপ্ন থাকে, সেগুলির মধ্যে নিজের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *