Breaking News
মুক্তিধারা- প্রকল্প

‘মুক্তিধারা’ প্রকল্প স্বনির্ভর হওয়ার উপায়। West bengal government Muktidhara Scheme।

মুক্তিধারা প্রকল্প: বাংলাকে দারিদ্র্য হাত থেকে মুক্তি প্রদান এবং একজোট হয়ে দারিদ্রতার বিরুদ্ধে মোকাবেলা করা ও বাংলাকে উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই হল পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মুক্তিধারা প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য । এককথায় স্বনির্ভর গোষ্ঠী গুলিকে কর্মসংস্থান জোগাড় করে দেওয়ার উদ্দেশ্য নিয়ে এই প্রকল্পের সূত্রপাত্র।

'মুক্তিধারা' প্রকল্প

মুক্তিধারা প্রকল্পের সূচনা, স্বনির্ভর হওয়ার উপায়। Starting of Muktidhara Scheme


2013 সালের 7 ই মার্চ পুরুলিয়ায় রাজ্য সরকারের উদ্যোগে এবং নবান্নের আর্থিক সাহায্যের মাধ্যমে এই মুক্তিধারা প্রকল্প চালু করা হয়। স্বনির্ভর গোষ্ঠী গুলিকে দারিদ্রতার কবল থেকে বের করে উন্নয়নের পথ দেখানো এই প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্য, আসলে এটি স্বনির্ভর হওয়ার উপায়। পুরুলিয়ায় 139 টির স্বনির্ভর গোষ্ঠী এ প্রকল্পের দ্বারা প্রশিক্ষিত হয়েছে ।

এই প্রকল্পে অসীম সাফল্যের জন্য এটি পশ্চিমবঙ্গের অন্যান্য জেলাতেও ছড়িয়ে পড়ে । বর্তমানে হুগলি ,হাওড়া, নদিয়া, উত্তর 24 পরগনা, দক্ষিণ 24 পরগনা, বর্ধমান এবং মুর্শিদাবাদে এ প্রকল্পটি সক্রিয় রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের 11 টি জেলার 38 টি মহাকুমা এই প্রকল্পের আওতায় রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি ব্লক থেকে পাঁচটি করে গ্রাম পঞ্চায়েত কে বেছে নিয়ে প্রতিটি পঞ্চায়েত পিছু পাঁচটি করে স্বনির্ভর গোষ্ঠী গঠন করে প্রতি 10 জন এই প্রকল্পের সুবিধা পান। রাজ্যের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য অনুসারে রাজ্যের 1300 পঞ্চায়েতে শিক্ষিত বেকারেরা রোজগারের পথ পাবেন । 

মুক্তিধারা প্রকল্পের লক্ষ্য। Target of muktidhara scheme

  • প্রকল্পের আওতাভুক্ত স্বনির্ভর গোষ্ঠী গুলিকে বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ প্রদান
  • প্রথম স্তরে প্রতিটি স্বনির্ভর গোষ্ঠী কে স্বনির্ভর গোষ্ঠী লোন হিসেবে 1 লক্ষ 25 হাজার টাকা পর্যন্ত ব্যাংক ঋণ প্রদানের মাধ্যমে সহায়তা করা ।
  • রাজ্যের শিক্ষিত বেকার যুবক যুবতীদের কর্মসংস্থান করা।
  • ব্যাংকের চলতি সুদের উপর 9 শতাংশ পর্যন্ত ভর্তুকি প্রদান করা।
  • পশ্চিমবঙ্গের 11 টি জেলায় প্রকল্প টি চালু করা ।

মুক্তিধারা প্রকল্পের সুবিধা। Benefits of muktidhara scheme

  • মুক্তিধারা প্রকল্পের আওতাভুক্ত জেলাগুলিতে বেকারত্ব অনেক পরিমাণে হ্রাস পেয়েছে ।
  • এই প্রকল্পের অধীনে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যরা স্বাবলম্বী হয়েছে।
  • স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যরা বিভিন্ন ধরনের কাজের সঠিক প্রশিক্ষণ পাচ্ছে ।
  • এই প্রকল্পের আওতাভুক্ত জেলাগুলিতে দারিদ্রতা অনেকটা হাস পেয়েছে।
  • এই প্রকল্পের মাধ্যমে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যদের বিভিন্ন কাজের উপর দক্ষতা বৃদ্ধি পেয়েছে।

*এছাড়া আরো পড়ুন-পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জনহিতকর প্রকল্পগুলি সমন্ধে জানুন

এই স্বনির্ভর গোষ্ঠী প্রকল্পের কর্মসূচি। Programs of ‘Mukti Dhara scheme’

1. পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার রাজ্যের অধীনে থাকা বিভিন্ন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর স্বনির্ভর হওয়ার উপায় হিসাবে বহুমুখী উন্নয়নের পরিকল্পনা করা হয়েছে এই প্রকল্পের মাধ্যমে। গ্রাম বাংলার বিভিন্ন স্বনির্ভর গোষ্ঠী সদস্যদের প্রশিক্ষিত করে তাদের জীবনের মানোন্নয়ন করে তোলার চেষ্টা করা হচ্ছে।

2. গত কয়েক বছরে রাজ্যের বিভিন্ন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর জন্য পাটের ব্যাগ, কৃত্তিম গয়না ,মোবাইল রিপেয়ারিং, প্যাকেজিং, ক্যাটারিং, প্রভৃতি বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর পাশাপাশি এই প্রকল্পের অধীনে থাকা জেলায় জেলায় মুরগি পালন, গোপালন, মৌমাছি পালন, সেলাই শিক্ষা ,ইত্যাদি বিভিন্ন হস্তকলা প্রশিক্ষণ সক্রিয় রয়েছে।

3. এই পর্যন্ত পুরুলিয়ায় সব মিলিয়ে 189 গোষ্ঠীকে 178. 48 কোটি টাকার ঋণ মঞ্জুর করা হয়েছে । পশ্চিম মেদিনীপুরের বিভিন্ন ব্লক যেমন ঝাড়গ্রাম, বিনপুর, গোপীবল্লভপুর ,জামবনি ,নয়াগ্রাম প্রভৃতি জায়গায় এই প্রকল্পের কাজ ইতিমধ্যে পরীক্ষামূলক ভাবে শুরু হয়ে গিয়েছে। 2014-15 অর্থবর্ষে বাঁকুড়া জেলার জঙ্গলমহল এর কয়েকটি ব্লকে মুক্তিধারা প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে।

4. যে সমস্ত উল্লেখযোগ্য বিষয় স্বনির্ভর গোষ্ঠী গুলিকে এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রশিক্ষিত করা হচ্ছে সেগুলো হলো টেইলারিং, গার্মেন্ট মেকিং ,উদ্যানপালন, অটো রিক্সা মোটর ড্রাইভিং, মোটর রিপেয়ারিং, টিভি ফ্রিজ এসি রিপেয়ারিং, প্লাম্বিং ,মোবাইল রিপেয়ারিং ,কারপেন্ট্রি, ট্যুরিজম ,সিকিউরিটি গার্ড, রিটেল অ্যাসোসিয়েট ইত্যাদি। স্বনির্ভর গোষ্ঠী লোন প্রদান করা হয়।

5. বর্তমানে রাজ্য সরকারের মুক্তিধারা প্রকল্পের যে সমস্ত জেলার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে সেগুলি হল উত্তর 24 পরগনা ,দক্ষিণ 24 পরগনা, পুরুলিয়া ,ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুর ,মুর্শিদাবাদ, হুগলি ,হাওড়া ,পশ্চিম বর্ধমান, পূর্ব বর্ধমান, নদীয়া।

মুক্তিধারা প্রকল্পের জন্য কারা আবেদন করতে পারবে। Eligibility of muktidhara scheme

 মুক্তিধারা প্রকল্পের প্রশিক্ষণ নিতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা আগে আবেদন করার যোগ্য কি যোগ্য না তা আগে যাচাই করতে হবে ।

> সর্বপ্রথম যে জেলাগুলির নাম উপরে উল্লেখ করা রয়েছে সেই জেলার দরিদ্র মানুষেরা এই মুক্তিধারা প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারেন।

>উপরিউক্ত জেলাগুলির দরিদ্র মানুষেরা নিজেদের মধ্যে স্বনির্ভর গোষ্ঠী নির্মাণ করে এই প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে।

>রাজ্যের সমস্ত স্বনির্ভর গোষ্ঠী এখনো পর্যন্ত কোন রকম সরকারি প্রশিক্ষণ পায়নি তারা চাইলে এই প্রকল্পের আওতায় আসতে পারে।

এই স্বনির্ভর হওয়ার উপায় প্রকল্পের আবেদন প্রক্রিয়া। Application process of muktidhara scheme

উপরিউক্ত জেলাগুলিতে ইতিমধ্যেই জেলা প্রশাসন টিম তৈরি করা করেছে এ প্রকল্পটির জন্য। এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে হলে আপনাকে ব্লকের গোষ্ঠীর সুপারভাইজার কিংবা স্বনির্ভর গোষ্ঠী ও স্বনিযুক্তি আধিকারিকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে ।

মুক্তিধারা প্রকল্প আবেদন করার জন্য ফর্ম। Application form of muktidhara scheme.

মুক্তিধারা প্রকল্প সম্বন্ধে আরও বিস্তারিত জানার জন্য আপনি আপনার এলাকার ব্লক বা স্বরোজগার নিগম স্বনির্ভর গোষ্ঠী ও স্বনিযুক্তি বিভাগের জেলা আধিকারিক , সুপারভাইজার এর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন ।

এছাড়াও আপনি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের এই ওয়েবসাইট এ ক্লিক করে তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন।
official link

মুক্তিধারা প্ৰকল্প ১

সবশেষে জানাই আবেদনকারী যদি প্রশিক্ষণ পেয়ে জীবিকা উপার্জনের স্থায়িত্ব আনতে পারেন তবে অতি অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের এই প্রকল্পে যোগদান করে সমাজে মাথা উঁচু করে এগিয়ে যান।

Share This:
Advertisement

Check Also

গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘরের লিস্ট সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্ন-উত্তর

আবাস প্লাস যোজনায় গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘরের লিস্ট সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্ন-উত্তর । Pradhan Mantri Awas Yojana Gramin List AtoZ Information

Pradhan Mantri Awas Yojana Gramin (প্রধান মন্ত্রী গ্রামীন আবাস যোজনা) সংক্ষেপে পিএমএওয়াই(জি) PMAY(G) বা আবাস …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *