Breaking News
দুয়ারে-সরকার-ক্যাম্পে-কি-কি-কাজ-হবে

Duare Sarkar Camp 2023 Ki Ki Subidha Paben । দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে কি কি সুবিধা পাওয়া যাবে

Duare Sarkar Camp 2023 Ki Ki Subidha Paben: পশ্চিমবঙ্গ সরকার সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগণকে সরাসরি সুবিধা প্রদানের জন্য দুয়ারে সরকার নামে ক্যাম্প চালু করেছেন। রাজ্যের প্রতিটি জেলায় বিভিন্ন জায়গায় এই ক্যাম্প খোলা হয়েছে এবং সেখানে সরকারি আধিকারিকগণ সরাসরি মানুষের অভাব অভিযোগ শুনছেন ও বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা গুলি পাওয়ার ব্যাপারে সাহায্য করছেন। রাজ্য সরকারের এই অসাধারণ উদ্যোগের ফলে সমস্ত রাজ্যবাসী তাদের নিজের জায়গায় আয়োজিত ক্যাম্পে এসে বিভিন্ন প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারছেন ও প্রকল্পগুলি সুবিধা নিতে পারছেন। এই দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে কি কি কাজ হবে কোন কোন প্রকল্পগুলির সুবিধা আপনারা পেতে পারেন সে বিষয়ে এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের দুয়ারে সরকার ক্যাম্প ২০২২-২৩ এর মাধ্যমে জনগণ চলতি প্রকল্প ছাড়াও আরো কিছু নতুন প্রকল্প সম্পর্কে তথ্য পাওয়া ও সুবিধা পাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন যেমন বিদ্যুতের বিল সংক্রান্ত অভিযোগ, বিদ্যুৎ বিল মুকুবের আবেদন এবং নুতন বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য আবেদন। তো আসুন জেনে নেওয়া যাক এই ক্যাম্পে কি কি প্রকল্প রয়েছে।

Duare Sarkar camp Ki Ki Subidha Paben

জেনে নেওয়া যাক দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে কি কি সুবিধা পাওয়া যাবে?

  • এই রাজ্যের প্রতিটি জেলায় সরকারি আধিকারিকদের সাহায্যে এই ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়েছে
  • এই ক্যাম্পগুলির মাধ্যমে জনগণ সরকারের অধীনে বিভিন্ন ধরনের প্রকল্পের আবেদন করতে পারে ও তার সুবিধা নিতে পারে
  • ২০২৩ সালের দুয়ারে সরকার ক্যাম্পগুলি শুরু হবে এপ্রিল মাস থেকে। ক্যাম্পগুলি কোন জেলায় কবে কোথায় হবে জানতে দুয়ারে সরকার ওয়েব সাইডটিতে জেলা ও ব্লক সিলেক্ট করে জেনে নিতে পারেন। জেনে নিন আপনার এলাকায় কবে দুয়ারে সরকার ক্যাম্প। এখানে ক্লিক করে দুয়ারে সরকার ওয়েবপেজে প্রবেশ করুন
  • এই ক্যাম্পগুলি হইতে জনগণ ৪টি নতুন প্রকল্প সমেত প্রায় ৩৩টি সরকারি প্রকল্পের সম্পর্কে জানতে ও আবেদন করতে পারবে
  • পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ১.৬ কোটি বিভিন্ন জাতির মানুষ এর মাধ্যমে উপকৃত হবে
  • প্রকল্প গুলির জন্য অফলাইন আবেদনপত্র অথবা অনলাইন আবেদন তৎক্ষণাৎ এই ক্যাম্প এর মাধ্যমে সম্পন্ন হইবে।
  • পশ্চিমবঙ্গ সরকার এই সম্পর্কে তথ্য জানার জন্য একটি সরকারি ওয়েবসাইট ও জনগণকে প্রদান করেছে। সেটি সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

রাজ্যবাসী কোন কোন প্রকল্পের সুবিধা এই দুয়ারে সরকার ক্যাম্পগুলি থেকে পেতে পারেন। Duare Sarkar Camp Ki Ki Subidha Paben. দুয়ারে সরকার কি কি প্রকল্প আছে?

খাদ্য সাথী:

পশ্চিমবঙ্গ সরকার ২০১৬ সালের ২৭শে জানুয়ারী মাসে খাদ্যসাথী প্রকল্পটির সুচনা করে। এর মাধ্যমে প্রায় ৭ কোটি অর্থাৎ এই রাজ্যের জনসংখ্যার প্রায় নব্বই শতাংশ নিন্নবিত্ত জনগণ ২ টাকা কেজি দরে চাল এবং গম পাবার সুবিধা পাবে। এছাড়া ৫০ লক্ষ মানুষ বাজারের দামের অর্ধেক দামে খাদ্যশস্য কিনতে পারবে। আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া মানষের কথা মাথায় রেখেই এই জনদরদী প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে।

এই লিংকে ক্লিক করে – খাদ্যসাথী কার্ড -এর জন্য অনলাইন আবেদন ও রেশন কার্ড সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য বিস্তারিত জানুন

স্বাস্থ্য সাথী কার্ড:

এই প্রকল্পের মাধ্যমে পশ্চিমবঙ্গ সরকার জনগণের জন্য ৫ লক্ষ টাকার চিকিৎসা রাজ্য ও রাজ্যের বাইরে ২০০০ এরও বেশী হাসপাতালে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে প্রদান করে। এই প্রকল্পটি সম্পূর্ণ ক্যাশলেস। স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে পরিচালিত হয়। এই কার্ডের মাধ্যমে রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করা হয়ে থাকে। রাজ্যের বাইরে অন্য রাজ্যে গিয়েও এই কার্ডের মাধ্যমে চিকিৎসা করানো সম্ভব। এই দুয়ারে সরকার ক্যাম্পের মাধ্যমে আপনি স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

জাতিগত শংসাপত্র:

SC/ST/OBC (এসি/এসটি/ওবিসি) জাতিগত শংসাপত্র জন্য দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে আবেদন করতে পারেন। এর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যেমন আধার কার্ড, ভোটার কার্ড, রেশন কার্ড, এডুকেশন সার্টিফিকেট, ইনকাম সার্টিফিকেট, পাসপোর্ট সাইজ ফটো কপি, জন্ম প্রমাণপত্র, ও কাস্ট প্রমাণের জন্য বংশের কারো কাস্ট সার্টিফিকেট জমা করতে হবে।

শিক্ষাশ্রী:

তপশিলি ও তপশিলি আদিবাসী পড়ুয়াদের জন্য পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষাশ্রী স্কলারশিপ বছরে ৮00 টাকা। এই প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার জন্য আপনি দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে আবেদন করতে পারেন।

কন্যাশ্রী:

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর অধীনে পশ্চিমবঙ্গ সরকার রাজ্যের মেয়েদের জন্য কন্যাশ্রী নামক অসাধারণ একটি প্রকল্প চালু করেছেন। এটি দু’ভাগে বিভক্ত প্রথমভাগ (K1) বার্ষিক বৃত্তি ১০০০ টাকা ১৩ থেকে ১৮ বছর বয়সের অবিবাহিতা মেয়েদের প্রদান করা হয় ও দ্বিতীয় ভাগ (K2) এককালীন ২৫ হাজার টাকা বৃত্তি প্রদান করা হয়। যাদের বয়স ১৮ বছরের বেশী কিন্তু ১৯ বছরের কম অবিবাহিতা মেয়েরা এই প্রকল্পটির জন্য আবেদন করতে পারেন এর জন্য আবেদনকারীকে পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হতে হবে সরকার স্বীকৃত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠরত থাকতে হবে এবং স্বনামে ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার থাকতে হবে। এই প্রকল্পের জন্য দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে আবেদন করা যাবে।

রূপশ্রী:

পশ্চিমবঙ্গ সরকার মেয়েদের বিয়ের সময় তার পরিবারকে আর্থিক চাপ মুক্ত করার জন্য এই প্রকল্পটি চালু করেছে এতে এককালীন ২৫ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা করা হয়ে থাকে। ১৮ বছরের বেশী বিবাহ ইচ্ছুক মেয়েরা যাদের পারিবারিক আয় বছরে দেড় লক্ষ টাকার কম তারা এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারেন। এই প্রকল্পের আবেদন ও আবেদনপত্র দুয়ারে সরকার ক্যাম্পেই পাওয়া যাবে।

ঐক্যশ্রী:

পশ্চিমবঙ্গে বসবাসকারী সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য এই ঐক্যশ্রী প্রকল্প চালু করেছে এই জনদরদি রাজ্য সরকার। ক্লাস ওয়ান থেকে পিএইচডি পর্যন্ত ছাত্র ছাত্রীরা এই স্কলারশিপের জন্য আবেদন করতে পারে। তিন ধরনের স্কলারশিপ প্রদান করা হয়। যেমন প্রি ম্যাট্রিক (প্রথম শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণি), পোস্ট ম্যাট্রিক (একাদশ শ্রেণি থেকে পিএইচডি), মেরিট কাম মিনস স্কলারশিপ (কারিগরি/বৃত্তিমুলক পাঠক্রমের জন্য)। দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে এই প্রকল্পের পুনর্নবীকরন (রিনিউয়াল) করা যাবে। নতুন আবেদন অনলাইনে করতে হবে। অনলাইনে আবেদন করার জন্য এখানে ক্লিক করুন

লক্ষীর ভান্ডার:

আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পরা প্রতিটি পরিবারের প্রাপ্তবয়স্ক মহিলাদের জন্য পশ্চিমবঙ্গের সরকার লক্ষীর ভান্ডার নামে এই প্রকল্পটি চালু করেছে। এই প্রকল্পে তপশিলি জাতি ও উপজাতির মহিলারা প্রতি মাসে ১০০০ টাকা পাবেন এবং সাধারন শ্রেণীর মহিলারা প্রতিমাসে ৫০০ টাকা পাবেন। আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পরা ২৫ থেকে ৬০ বছরের মহিলারা দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে আবেদন করতে পারবে। মাসে মাসে নিচিন্ত আয় লক্ষ্মীর ভান্ডার নারীর সহায়।

কৃষক বন্ধু:

কৃষি ভাইদের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকার কৃষক বন্ধু নামে একটি প্রকল্প চালু করেছে। খরিফ ও রবি চাষের আগে কৃষি উপকরণ কেনার জন্য এক একর ও তারও বেশী চাষযোগ্য জমির জন বছরে ২ কিস্তিতে সর্বাধিক ১০০০০ টাকা আর জমি কম হলে সর্বনিম্ন ৪০০০ টাকা বছরে দুই কিস্তিতে পাওয়া যাবে। সেইসঙ্গে ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়েসি কোন কৃষক মারা গেলে এককালিন ২ লক্ষ টাকা অনুদান পাওয়া যাবে। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যেমন জমির প্রমাণপত্র, ভোটার কার্ড, আধার কার্ড, ব্যাংকের পাস বই, পাসপোর্ট সাইজ ফটো কপি, ও মোবাইল নম্বর নিয়ে দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে হবে।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড প্রকল্পঃ

এই রাজ্যে বসবাসকারী শিক্ষার্থীদের ব্রাইট ভবিষ্যতের জন্য ও তাদের শিক্ষার অগ্রগতির জন্য স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমেখুবই স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদে পরিশোধযোগ্য সর্ব্বচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত শিক্ষাঋণ পাওয়া যায় । তার জন্য দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে আবেদন করতে পারেন।

তপশিলি বন্ধু ও জয় জোহার পেনশন:

পশ্চিমবঙ্গে বসবাসকারী ষাটোর্ধ্ব তপশিলি জাতির নাগরিকদের জন্য এই প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে। এই সকল নাগরিকরা এই প্রকল্পের অধীনে প্রত্যেক মাসে ১০০০ টাকা পেনশন পেয়ে থাকেন।এই প্রকল্পের আবেদন করার জন্য দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে যোগাযোগ করতে হবে।

জব কার্ড:

গ্রামে ১০০ দিনের কাজ পাওয়ার জন্য জব কার্ডের আবেদন দুয়ারে সরকার ক্যাম্প থেকে করা যাচ্ছে।

মানবিক:

শারীরিক প্রতিবন্ধী নাগরিকদের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকার এই মানবিক প্রকল্প চালু করেছে। এই প্রকল্পের অধীনে শারীরিক প্রতিবন্ধী জনগণকে এক হাজার টাকা করে মাসিক পেনশন দেওয়া হয়। ৫০% ও তার বেশি শারীরিক প্রতিবন্ধীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সমেত দুয়ারে সরকার ক্যাম্প এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবে।

বৃদ্ধ ভাতা / বিধবা ভাতা:

ষাটোর্ধ্ব বয়স্ক নাগরিকরা ১০০০ টাকা প্রতিমাসে বৃদ্ধ ভাতা ও বিধবা মহিলারা ১০০০ টাকা মাসিক ভাতা রাজ্য সরকারের এই প্রকল্পের মাধ্যমে সরাসরি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পেয়ে থাকে। যাহারা এখনো এই প্রকল্পের সুবিধা পাননি তাহারা এই প্রকল্পে সুবিধা পাওয়ার জন্য দুয়ারের সরকার ক্যাম্পে গিয়ে আবেদন করতে পারেন।

এই বছর অর্থাৎ ২০২১ এর তৃতীয় পর্যায়ের দুয়ারে সরকারকে ক্যাম্পগুলি ১৬ ই আগস্ট ২০২১ থেকে পনেরোই সেপ্টেম্বর ২০২১ পর্যন্ত এক মাস চলবে, প্রয়োজনে এই সময়সীমা বাড়ানো হতে পারে। এর আগে প্রথম পর্যায়ের ক্যাম্প গুলি ১লা ডিসেম্বর ২০২০ থেকে ২৫ শে জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত মোট ৫৫ দিন আয়োজিত হয়েছিল। এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে এই ক্যাম্প চলেছিল সাতাশে জানুয়ারি ২০২০ থেকে ৪ই ফেব্রুয়ারি ২০২১ পর্যন্ত।

*এবারে ১লা থেকে ৩০শে নভেম্বর ২০২২ পর্যন্ত দুয়ারে সরকার ক্যাম্প চলবে এই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায়

দুয়ারে সরকার:
Helpline : (1070 / 033-22143526)
Email: duaresarkar@ajitsarkar781974gmail-com

উপরোক্ত প্রকল্পগুলি ছাড়াও আরো কিছু প্রকল্পের জন্য যেমন স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড, ব্যাংক একাউন্ট খোলা, আধার কার্ড তৈরি ও আধার কার্ড সম্পর্কিত তথ্য‌, জয়গা-জমি সংক্রান্ত কাগজপত্রের কাজ, নুতন সংযোজন হল বিদ্যুতের বিল সংক্রান্ত অভিযোগ ও বিদ্যুৎ বিল মুকুবের আবেদন এবং নুতন বিদ্যুৎ সংযোগের আবেদন ইত্যাদি বিষয়ে আপনারা দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে সরকারি আধিকারিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন এবং সেখানে আপনি আবেদন ও সমস্যার কথা বলতে পারেন।

দুয়ারের সরকারে প্রকল্পগুলির সুবিধা পেতে গেলে কোন প্রকল্পে আপনার কি কি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দরকার তা নিম্নরূপ..
লক্ষীর ভান্ডার:
১) ভোটার কার্ড ২) আধার কার্ড ৩) ব্যাঙ্ক পাসবুক ৪) ফটো দুই কপি ৫) স্বাস্থ্যসাথী কার্ড ৬) ডিজিটাল রেশন কার্ড ৭) প্রধান সার্টিফিকেট ৮) SC/ST/OBC সার্টিফিকেট যদি থাকে
স্বাস্থ্যসাথী কার্ড:
১) ভাটার কার্ড ২) আধার কার্ড ৩) ডিজিটাল রেশন কার্ড ৪) জন্ম সার্টিফিকেট
ডিজিটাল রেশন কার্ড:
১) পরিবারের প্রধানের ডিজিটাল রেশন কার্ড ২) জন্ম সার্টিফিকেট। ৩) আধার কার্ড ৪) ভোটার কার্ড
কৃষক বন্ধু:
১) ভোটার কার্ড। ২) আধার কার্ড ৩) ব্যাঙ্ক পাসবুক ৪) জমির কবলা বা খতিয়ান ৫) ফটো দুই কপি।
বিধবা / বার্ধক্য ভাতা:
১) ভোটার কার্ড ২) আধার কার্ড ৩) ডিজিটাল রেশন কার্ড ৪) ফটো দুই কপি ৫) ব্যাঙ্ক পাসবুক ৬) ইনকাম সার্টিফিকেট
জমির খতিয়ান করার জন্য:
১) ভোটার কার্ড ২) আধার কার্ড ৩) কবলা বা খতিয়ান ৪) ওয়ারিশ সার্টিফিকেট ৫) মিউটেশন ফর্ম
প্রতিবন্ধী ভাতা:
১) প্রতিবন্ধী সার্টিফিকেট ২) ভোটার কার্ড ৩) আধার কার্ড ৪) ফটো দুই কপি
৫) ব্যাঙ্ক পাসবুক
জয়বাংলা ভাতা:
১) ভোটার কার্ড ২) আধার কার্ড। ৩) ডিজিটাল রেশন ক ৪) ফটো দুই কপি ৫) ব্যাঙ্ক পাসবুক ৬) ইনকাম সার্টিফিকেট

আশা করি এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনারা পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অভিনব কর্মসূচি দুয়ারে সরকারের কি কি সুবিধা গুলি পাচ্ছেন সে সম্বন্ধে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারলেন। ‘দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে কি কি সুবিধা পাওয়া যাবে’ পোস্টটি দ্বারা আপনারা উপকৃত হলে অবশ্যই বন্ধু-বান্ধবদের মধ্যে শেয়ার করবেন

*এছাড়া পড়ুন- পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পগুলির নাম ও বিস্তারিত তথ্য

Share This:
Advertisement

Check Also

গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘরের লিস্ট সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্ন-উত্তর

আবাস প্লাস যোজনায় গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘরের লিস্ট সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্ন-উত্তর । Pradhan Mantri Awas Yojana Gramin List AtoZ Information

Pradhan Mantri Awas Yojana Gramin (প্রধান মন্ত্রী গ্রামীন আবাস যোজনা) সংক্ষেপে পিএমএওয়াই(জি) PMAY(G) বা আবাস …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *