Breaking News
Swasthyasathi Card (স্বাস্থ্য সাথী কার্ড)

Swasthyasathi Card Details in Bengali । স্বাস্থ্য সাথী কার্ড সংক্রান্ত জিজ্ঞাসা ও আবেদন পদ্ধতি ২০২১

Swasthyasathi Card: অত্যাধুনিক আধুনিক মানের স্বাস্থ্য পরিষেবা রাজ্যের প্রতিটি প্রান্তিক মানুষের দরজায় পৌঁছে দেওয়ার উদ্দেশ্যেই পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দপ্তর স্বাস্থ্য সাথী নামে একটি প্রকল্প চালু করেছে। রাজ্যের প্রতিটি বাসিন্দার সার্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষার লক্ষ্যে ২০১৬ সালের ১৭ই ফেব্রুয়ারি রাজ্য মন্ত্রিসভার অধিবেশনে গৃহীত হয় স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পটি। একই বছরের ৩০ ডিসেম্বর মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেন। এর চার বছর পর ২৬ শে নভেম্বর ২০২০ সালে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড চালু করা হয়। তখন নির্দিষ্ট কিছু পেশার মানুষ এই কার্ডের আওতায় ছিলেন।
এরপর ২০২০ সালের ১লা ডিসেম্বর মাননীয় মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা করেন রাজ্যের সকল মানুষকে এই স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের মধ্যে নিয়ে আসা হবে। সেই মর্মে ২০০০- এরও বেশি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল কে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়।

*এছাড়া পড়ুন-লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পটিতে কিভাবে আবেদন করবেন

স্বাস্থ্য সাথী কার্ড সংক্রান্ত

স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পটির বৈশিষ্ট্য:

  • এই প্রকল্পটির সম্পূর্ণ পেপারলেস ও ক্যাশলেস, স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে পরিচালিত হয়।
  • পরিবারের মহিলা সদস্যের নামে কার্ডটি প্রদান করা হবে এবং তার বাবার ও শ্বশুরবাড়ির শিশু সমেত প্রতিটি ব্যক্তি সেই কার্ডের আওতায় চিকিৎসা সুবিধা পাবে। বয়সের কোন সীমাবদ্ধতা নেই। পরিবারের শারীরিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা এই সুবিধার আওতায় থাকবে।
  • প্রত্যেক বছর পরিবার পিছু ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত চিকিৎসা খরচ পাবেন। ইন্সুরেন্স মোডে‌র মাধ্যমে তিন লক্ষ টাকা পর্যন্ত এবং অ্যাসুরেন্স মোডে‌র মাধ্যমে ১.৫ থেকে ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত।
  • হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাবার সময় গাড়ি ভাড়া বাবদ ২০০ টাকা আর সরকারি হাসপাতালের ক্ষেত্রে ৫০০ টাকা পর্যন্ত প্রদান করা হবে।
  • হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরের পাঁচদিনের ওষুধ বিনামূল্যে এই প্রকল্পের আওতায় ।
  • হাসপাতালে চিকিৎসা খরচ বীমা কোম্পানি প্রদান করিবে এবং তার জন্য উপভোক্তা কে কোন প্রিমিয়াম দিতে হবে না পুরো প্রিমিয়াম রাজ্য সরকার বহন করিবে।
  • রাজ্য ও দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ভেলোর মিলিয়ে প্রায় ২০০০ টি হাসপাতালে এই কার্ডের মাধ্যমে চিকিৎসা সুবিধা পাওয়া যায়।
  • প্রায় ১৯০০র বেশি ধরনের রোগের চিকিৎসার খরচ এই কার্ডের আওতায় মধ্যে পড়ে। এছাড়া পূর্ববর্তী অসুখ এই স্বাস্থ্য বীমার অন্তর্ভুক্ত।
  • চিকিৎসার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় ঔষধ এই পরিষেবার অন্তর্ভুক্ত এছাড়া যদি বাইরে থেকে ওষুধ কিনতে হয় সেক্ষেত্রে হাসপাতালে সেই রশিদ জমা করতে হবে।
  • কার্ড সংক্রান্ত যেকোন সমস্যার জন্য হেল্পলাইন নম্বর 18003455384 এ ফোন করতে হবে। এছাড়া স্বাস্থ্যসাথী অ্যাপের মাধ্যমে সমস্ত তথ্য পাওয়া যাবে।

কারা কারা স্বাস্থ্য সাথী (Swasthyasathi Card) এই প্রকল্পের সুবিধা পাবে না

রাজ্য বা কেন্দ্র সরকারের স্বাস্থ্য প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত থাকলে এই প্রকল্পের আবেদন করা যাবে না।
এই প্রকল্পের আবেদন করার জন্য আপনাকে অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হতে হবে।

স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের জন্য কিভাবে আবেদন করবেন ও পাবেন?

  • স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর জন্য আপনাকে আবেদন করতে হবে অফলাইনে।
  • স্বাস্থ্য সাথীর আবেদনের জন্য ফরম-বি পূরণ করে দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করিয়ে ফরমটি জমা করতে হবে
  • ফরমটিতে আবেদনকারীর ও পরিবারের সকল সদস্যের নাম ও ঠিকানা সঠিকভাবে বসতে হবে।
  • আপনার চালু মোবাইল নাম্বার, লিঙ্গ, বয়স ও আবেদনকারিনীর সাথে সম্পর্ক উল্লেখ করতে হবে।
  • খাদ্যসাথী কিংবা আধার কার্ডের জেরক্স ফরমের সঙ্গে জমা করতে হবে।
  • খাদ্য সাথী ও আধার কার্ড না থাকলে অন্যান্য সরকারি পরিচয় পত্র জমা করতে হবে।
  • এরপর আবেদন মঞ্জুর হলে ছবিতোলা ও কার্ড দেওয়ার জন্য ডাকা হবে।
  • ছবি তোলার সময় আবেদন পত্রে দেওয়া আবেদনকারীর সবাইকে আধার কার্ড সমেত উপস্থিত থাকতে হবে ও আঙ্গুলের ছাপ দিতে হবে।
  • এরপর ঐদিনই সাথে সাথে একটি স্বাস্থ্য সাথী স্মার্ট কার্ড প্রধান আবেদনকারীর নামে ইসু হবে।

নীচে দেওয়া নমুনাটির লাল খোপগুলি দেখে নিন-

ফর্ম-বি এখান থেকে ডাউনলোড করে প্রিন্ট করিয়ে নিনএখান থেকে

**আপনার ও আপনার পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্য সাথী কার্ড পাবার জন্য অনলাইনে কিভাবে আবেদন করবেন সেটা জানতে- “স্বাস্থ্য সাথী কার্ড -এর জন্য কিভাবে আবেদন করবেন অনলাইন ও অফলাইনে” এই প্রবন্ধটি দেখুন।

স্বাস্থ্য সাথী কার্ড সম্বন্ধে কয়েকটি প্রশ্ন ও তার উত্তর:

স্বাস্থ্য সাথী কার্ড কি সব কাস্টের মানুষ পাবে?

SC/ST/OBC/GENERAL-এসসি/এসটি/ওবিসি/জেনারেল সবাই এই কার্ড কার্ডের সুবিধা পাবে. শুধু যারা কেন্দ্র বা রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য স্কিমে অন্তর্ভুক্ত তারা আবেদন করতে পারবেন না।

স্বাস্থ্য সাথী কার্ড কারা পাবে?

পশ্চিমবঙ্গে বসবাসকারী যে সমস্ত পরিবারের স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নেই।
সরকারি বা বেসরকারি সংস্থার কর্মী কিন্তু চিকিৎসা ভাতা পান না এসব পরিবার গুলি স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর জন্য আবেদন করতে পারেন।
যারা রাজ্য কিংবা কেন্দ্র সরকার বা সরকার চালিত কোন হেলথ স্কিম এর অন্তর্ভুক্ত নয় তারা এই কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন।
এছাড়া স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যা, চুক্তিভিত্তিক দৈনিক ও নিম্নআয় প্রাপ্ত কর্মচারী যথা আশা কর্মী, অঙ্গনওইয়াড়ি কর্মী ও সহায়ক, সিভিক স্বেচ্ছাসেবক, সিভিক-গ্রীন-ভিলেজ ভলেন্টিয়ারগণ, চুক্তিভিত্তিক হোমিয়প্যাথি-আয়ু্‌স-ইউনানী-আর.বি.এস.কে ডাক্তারগণ, নির্বাচিত পঞ্চায়েত সদস্য, এম জিএন আর ই জি এ, আনন্দধারা ও ডি আর ডি সি, পার্টটাইম টিচার , পি এম জি এস ওয়াই, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে সরকারের অস্থায়ী এবং চুক্তিভিত্তিক কর্মচারীগণ । এই বিভাগগুলি ছাড়াও রাজ্য সরকার বিভিন্ন সময় আরো নতুন বিভাগ অন্তর্ভুক্ত করে চলছেন।

হাসপাতালে ভর্তির পর কি কার্ড জমা দিতে হবে?

কার্ডের সুবিধা প্রাপ্ত ব্যাক্তি হাসপাতালে ভর্তির ২৪ ঘন্টার মধ্যেই এই স্মার্ট কার্ডে জমা করতে হবে

স্বাস্থ্যসাথী অ্যাকাউন্ট থেকে হাসপাতাল কত টাকা কাটলো আর কত টাকা একাউন্টে আছে কিভাবে বুঝব?

হাসপাতাল থেকে একটি ডিসচার্জ স্লিপ দিবে তাতে খরচের তথ্য থাকবে এছাড়া স্বাস্থ্য সাথী অ্যাপস প্রবেশ করে ইউ আর এন নম্বর দিলেও এই তথ্য পাওয়া যাবে । এছাড়া হেল্পলাইন নম্বর ১৮০০৩৪৫৫৩৮৪-এ ফোন করে জানা যাবে সমস্ত তথ্য।

কোন কোন হাসপাতালে এই প্রকল্পের সুবিধা গুলি পাওয়া যাবে?

সরকার নির্ধারিত সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে এই সুবিধা পাওয়া যাবে. এখানে ক্লিক করে আপনি সে তালিকা দেখতে পারেন- হাসপাতাল তালিকা

এই কার্ডটি কি প্রত্যক বছর রিনিউ করতে হবে?

হ্যাঁ এটি প্রত্যেক বছর নবীকরণ করতে হবে এই কার্ডের মেয়াদ এক বছর।

হাসপাতালে ভর্তি না হয়ে টেস্ট ও মেডিসিন এর খরচ কি কার্ডের মাধ্যমে করা যাবে?

না হাসপাতালে ভর্তি না হলে টেস্ট ও মেডিসিনের খরচ পাওয়া যাবে না।

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর বাড়ি ফেরার খরচ কি এই কার্ড থেকে করা যাবে?

এই প্রকল্পে বাড়ি ফেরার খরচ বরাদ্দ আছে ২০০ টাকা আর সরকারি হাসপাতাল থেকে ফেরার খরচ বরাদ্দ ৫০০ টাকা

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাবার সময় আপনার স্মার্ট কার্ডটি নিতে ভুলবেন না।

পরিবারের কোন সদস্যের নাম বাদ পরলে ফ্রম-এ পূরণ করে ‘দুয়ারে সরকার’- এর মাধ্যমে আবেদন করুন।

ভেলোরে (CMC) গিয়ে স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের মাধ্যমে চিকিৎসা করাতে হলে আপনাকে আগে রেজিট্রেশন করতে হবে, তার জন্য এখানে ক্লিক করবেন

স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নাম চেক করবেন কিভাবে

আপনার পরিবারের কিংবা আপনার নাম স্বাস্থ্য সাথী কার্ডে আছে কিনা চেক করার জন্য এখানে ক্লিক করুন


আরও বিষয়ে জানার থাকলে এখানে ক্লিক করে অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যেতে পারেন।

Share This:
Advertisement

Check Also

গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘরের লিস্ট সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্ন-উত্তর

আবাস প্লাস যোজনায় গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘরের লিস্ট সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্ন-উত্তর । Pradhan Mantri Awas Yojana Gramin List AtoZ Information

Pradhan Mantri Awas Yojana Gramin (প্রধান মন্ত্রী গ্রামীন আবাস যোজনা) সংক্ষেপে পিএমএওয়াই(জি) PMAY(G) বা আবাস …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *